Category Archives: হাত

হাত পায়ের আঙ্গুলের কালো দাগ দূর করে টানটান করার উপায়

হাত পায়ের আঙ্গুলের কালো দাগ দূর করে টানটান করার উপায়

সবসময় সুন্দর ও আকর্ষনীয় থাকার প্রথম শর্ত হচ্ছে দাগহীন ত্বক। কিন্তু ত্বককে দাগহীন ও পরিষ্কার রাখা খুব বেশী সহজ হয় না কারন আমাদের বেশীরভাগ সময়ই কাজের জন্য বাইরে থাকতে হয়। আর শুধুমাত্র মুখ দাগহীন থাকলেই সৌন্দর্য পরিপূর্ন হয় না। মুখের পাশাপাশি আমাদের হাত পায়ের ও যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। অনেক সময় দেখা যায় আমাদের মুখের সাথে হাত পায়ের রঙ মিশে না। বিশেষ করে বেশীক্ষন রোদে পুড়লে হাতে পায়ে বাদামী ও কালো কালো এক ধরনের ছোপ পড়ে। এছাড়া হাতের আঙ্গুলের ভাজে কিছুটা কুচকে থাকার জন্য অনেক সময় হাতের আংটি অথবা চুড়ি পড়লে মানানসই হয় না। এক্ষেত্রে এই সব সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে আমরা বাসায় বসেই কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারি। এতে যেমন বাড়তি খরচ ও কম হবে আর তার সাথে সাথে সময় ও কম লাগে। তাই আজ আমরা হাত পায়ের কালো দাগ দূরীকরনের কয়েকটি পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করব।

লেবুর রসঃহাত পায়ের আঙ্গুলের কালো দাগ দূর করে টানটান করার উপায়

কালো দাগ দূর করতে লেবুর রসের তুলনা হয় না। এক্ষেত্রে বাইরে থেকে এসে প্রথমে হাত পা ভালো করে পানি দিয়ে ধূয়ে নিন। এরপর একটা লেবু কেটে তা খোসা সহ রস ভালোভাবে হাত পায়ের আঙ্গুলে ভালভাবে ঘষে নিন। এবার এভাবে ২০ থেকে ১৫ রেখে দিয়ে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।
একটা লেবু চিপে নিয়ে এর সাথে এক চামুচ চিনি মিশিয়ে নিন। এবার এটা হাত পায়ের আঙ্গুলের ভাজে লাগিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। এর পর হালকা গরম পানি দিয়ে ঘষে ঘষে তুলে নিন। এটি আপনার হাত পায়ের জন্য ন্যাচারাল স্ক্রাব হিসেবে কাজ করবে।
অর্ধেক লেবুর রসের সাথে ১ চা চামুচ মধু মিশিয়ে পেষ্ট তৈরী করে নিন। এবার এই পেস্ট কালো ছোপ ও আঙ্গুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। ৩০ মিনিট পর কুসুম গরম পানিতে ধুয়ে নিন। এটা আপনার হাত পায়ের পোড়া দাগ দূর করতে সাহায্য করবে।

চালের গূড়া ও তরমুজের রসঃ

কয়েক টুকরা তরমুজ ব্লেন্ড করে এর সাথে ১ টেবিল চামুচ চালের গুড়া মিশিয়ে নিন। এবার গোসল করার ১৫ মিনিট পূর্বে এটি হাত পায়ে লাগিয়ে নিন। এর পর হাত দিয়ে আলতো করে ঘষে ঘষে তুলে নিন।

পেপে ও বেসনের পেস্টঃ

একটা পাকা পেপে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে এর সাথে ২ চামুচ বেসন মিশিয়ে নিন। যেহেতু হাত ও পায়ের চামড়া ত্বকের তুলনায় বেশী শক্ত হয় তাই এটা লাগিয়ে তুলে ফেলার সময় ভালভাবে ঘষে ঘষে তুলতে হবে। এবার গোসলের আগে তুলে নিয়ে ঠান্ডা পানিতে হাত পা ধুয়ে নিন।

হলুদ গুড়াঃ

দাগ দূর করতে হলুদের বিকল্প নেই। প্রথমে এক চামুচ হলুদ গুড়ার সাথে ১ চা চামুচ লেবুর রস মিশিয়ে পেষ্ট করে নিন। এবার এটি হাত পায়ের আঙ্গুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। ৩০ মিনিট পর লেবুর রস দিয়ে ঘষে তুলে নিয়ে ঠান্ডা পানিতে হাত পা ধুয়ে নিন। এটী আপনার হাত পায়ের কালো দাগ দূর করার সাথে সাথে ত্বককে আরো টানটান করে।

এলোভেরা জেলোঃ

একটা এলোভেরা কেটে জেলো বের করে নিন। এবার এটা হাত পায়ের আঙ্গুল ও আক্রান্ত জায়গায় লাগিয়ে ৪০ মিনিট অপেক্ষা করে হাত পা ধুয়ে নিন। এতে করে হাত পা অনেক টানটান ও মসৃণ হবে।

কোমল ও মসৃণ হাত

কোমল ও মসৃণ হাত

হাত আমাদের শরীরের সবছেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। প্রতিদিন আমাদের যেকনো কাজে সবচেয়ে বেশী ব্যাবহার হয় হাতের।  মেয়েদের প্রধানত রান্না-বান্না ও গৃহস্থালি কাজ বেশি করতে হয়। হাতই সেখানে ব্যবহৃত হয় বেশি। তরকারি ও তেল-মশলার দাগ প্রায় সময়ই হাতে লাগে।  এছাড়া বাইরের রোদ, ধুলাবালির কারণে হাতের রঙ কালো হয়ে যায় এবং তা মসৃণতা হারায়। সামান্য কিছু নিয়ম পালন করলেই তার মসৃণতা আবার ফিরিয়ে আনতে পারি।

প্রতিদিন অন্তত ৪ থেকে ৫ বার  হাত পরিস্কার করা উচিত।  হাতে সাবান লাগানোর পর মশ্চারাইজার বা লোশন ব্যাবহার করুন। হাতকে শুস্ক রাখার চেস্টা করুন।

কোমল ও মসৃণ হাত১ টেবিল চামচ গুড়োঁ দুধ, ১ টেবিল চামচ মধু, ১ টেবিল চামচ লেবুর রস ভাল ভাবে মিশিয়ে হাত পায়ে ১০-১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে হাত নরম ও মসৃণ হয়।

রোদ এ বের হওয়ার আগে অবশ্যই সম্পূর্ণ হাতে সানস্কিন লোশন ব্যাবহার করা উচিত। এতে সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি থেকে হাতের ত্বককে রক্ষা করবে।

গোসলের আগে অলিভ অয়েল ও বাদাম তেল হাতে ভালো ভাবে মালিশ করে নিতে পারেন। এতে হাত ভালো থাকবে। গোসল শেষে কোনো হ্যান্ড লোশন কিংবা একটু গ্লিসারিন সমপরিমাণ পানির সাথে মিশিয়ে হাতে মেখে নিতে পারেন। অনেকের কনুইয়ে কালো ছাপ পড়ে। সে ক্ষেত্রে প্রতিদিন এক টুকরো লেবু নিয়ে ঘষে নিলে দাগ উঠে যাবে।

এক চা চামচ লেবুর রস, এক চা চামচ শশার রসের সাথে এক চিমটি হলুদের গুঁড়ো মিশিয়ে একটি পেস্ট বানিয়ে হাতে লাগিয়ে নিন। এরপর এটি শুকিয়ে গেলে ভালো করে পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিন। এতে হাতের কালো দাগ দূর হয় এবং হাত কোমল হয়।

দুই চামুচ মাখন অথবা টক দই এর সাথে এক চামুচ চিনি মিশিয়ে ভালভাবে ফেটে নিন। এবার এই পেষ্ট টা দিয়ে ভালভাবে দুই হাত কনুই পর্যন্ত মাস্যাজ করুন। ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে হাতের চামড়া অনেক নরম হয়।

এই প্যাকটি শুষ্ক ও স্বাভাবিক ত্বকের জন্য ভীষণ উপকারী। সম পরিমাণ লেবুর রস আর মধু মিশিয়ে হাতে পায়ে লাগান। কিছুক্ষণ পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কমলার খোসা শুকিয়ে সেটা গুঁড়ো করে কাঁচা দুধের সাথে মিশিয়ে হাতে লাগালে অনেক উপকার পাওয়া যায়।

 

মডেলঃ নিপা

হাত পায়ের কালো দাগ দুরীকরন

হাত পায়ের কালো দাগ দুরীকরন

সুন্দর হাত পা সুন্দর ত্বকের মতই গুরুত্তপুর্ন। আমরা অনেক সময় ত্বকের যত্ন নিতে নিতে হাত পা এর যত্ন নিতে ভুলে যাই। মুখের ত্বকের সঙ্গে হাত-পায়ের ত্বকের যত্ন নেওয়া হয় না বলেই আমাদের ত্বকের রঙে বিভিন্ন বৈসাদৃশ্য দেখা যায়। আবার রোদের তীব্রতার কারনে সূর্যের আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি সরাসরি ত্বকের উপর পড়ে হাত-পায়ের কালো দাগ কয়েকগুণ বেড়ে যায়। সারাদিন বাইরে কাজ করার পর সময়ের অভাবে অনেকসময় পার্লারে গিয়ে এর যত্ন নেওয়া সম্ভব হয় না। তাই এইসব দাগ থেকে মুক্তি পেতে আমরা প্রাকিতিকভাবেই ঘরে বসে এর যত্ন নিতে পারি।

হাত পায়ের কালো দাগ দুরীকরনকাঁচা দুধ দাগ দূর করতে অনেক ভুমিকা পালন করে। প্রতিদিন গোসল করার আগে হাতে পায়ে কাঁচা দুধ ঘষে নিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বক উজ্জ্বল হয়।

কমলার খোসা শুকিয়ে সেটা ভালোভাবে গুঁড়ো করে নিন। এবার ২ টেবিল চামুচ কাঁচা দুধের সাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরী করে নিন। এবার এই এটাকে হাতে পায়ে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটা নিয়মিত হাতে পায়ে লাগালে দ্রুত দাগ দূর হয়।

অ্যালোভেরা হাত পায়ের দাগ দূর করতে সাহায্য করে। দুই টেবিল-চামচ অ্যালোভেরার শাঁসে এক চা-চামচ মধু মিশিয়ে দাগে ঘষে নিন। চাইলে অ্যালোভেরা সরাসরি স্কিন এ লাগাতে পারেন। এতেও ভালো উপকার পাওয়া যায়।

২ চামুচ চন্দন গুঁড়োর সাথে  ১ চামুচ শশার রস, টমেটো এবং ১ চামুচ লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট করে নিন। এবার এটাকে হাত পায়ে লাগিয়ে  ১৫ মিনিট রেখে দিন। ১৫ মিনিট পর ফ্রেস পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে কালচে পড়া হাত পায়ের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

১ টেবিল চামচ গুড়োঁ দুধ এর সাথে ১ টেবিল চামচ মধু ও  ১ টেবিল চামচ লেবুর রস ভাল ভাবে মিশিয়ে হাত পায়ে লাগিয়ে ১০-১৫ মিনিট রেখে দিন। তারপর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

এক টেবিল-চামচ  চালের গুঁড়া অথবা ময়দার সাথে  দুধ, লেবুর রস ও মধু  মিশিয়ে স্ক্রাব তৈরী করে নিন। এবার এর সঙ্গে  এক টেবিল-চামচ নারকেল তেল অথবা তিলের তেল মিশিয়ে হাত পায়ে ভালো করে ঘষে নিন। সপ্তাহে দুই দিন করলে দাগ দ্রুত দূর হয়।

কয়েকটা আমন্ড সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এবার সকালে এর সাথে এক চা চামুচ বেসন, এক চা চামুচ দুধ ও কয়েক ফোটা লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে হাতে পায়ে মেখে নিন। ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে  ফেলুন। এতে আপনার ত্বকের স্বাভাবিক উজ্জল্য আসবে।

আলুর রস দাগ দূর করতে সাহায্য করে। একটা আলু কেটে এর রস হাতে পায়ের উপর যেখানে দাগ আছে সেসব জায়গায় লাগান। নিয়মিত ব্যাবহারে দাগ দূর হয়।

মেহেদী রাঙ্গা হাত

মেহেদী রাঙ্গা হাত

উৎসবের দেশ বাংলাদেশ। আর উৎসব মানেই সাজগোজ। বাঙালি নারীরা যেমন উৎসব পালন করতে পছন্দ করে তেমনি  সাজতে পছন্দ করে। পলেহা বইশাখ, পহেলা ফাল্গুন, বিয়ে, পুজা- পারবণ, ঈদ, ভালোবাসা দিবস সব উৎসবেই সাজগজের জন্য আদিকাল থেকেই চলে আসছে মেহেদির চল। বিশেষ করে বিয়েতে মেয়েরা হাত ভরতি মেহেদি লাগায়। কিন্তু মনের মত রঙ না হলে মেহেদি লাগানোর আনন্দই মাটি হয়ে যায়। তাই একটু নিয়ম পালন করলেই আমরা মেহেদি থেকে মনের মত রঙ পেতে পারি যা আমাদের হাতের সৌন্দর্য্যকে আরও বাড়িয়ে তোলে এবং উৎসবের আনন্দকে দিগুণ করে দেয়।

মেহেদী রাঙ্গা হাত

photo by – Rocker ClickZ

আগেকার দিতে মেয়েরা মেহেদি পাতা তুলে সেটা বেটে হাতে লাগাতো। কিন্তু এখন বাটা মেহেদির চল উঠে গেছে। এখন বাজারে বিভিন্ন ধরনের টিউব মেহেদি পাওয়া যায়। কিন্তু আইসন মেহেদিতে বিভিন্ন ধরনের ক্যামিকাল থাকে। তাই মেহেদি লাগানোর আগে পরিক্ষা করে দেখতে হবে এতে আপনার ত্বক এর কোনো ক্ষতি করে কিনা। যদি আপনার ত্বক অনেক বেশি স্পরশকাতর হয় তাহলেটিউব মেহেদি লাগানো থেকে বিরত থাকুন।

আপনি যদি হাতে ওয়াক্সিং করে থাকেন তাহলে সাথে সাথে ওইখানে মেহেদি লাগাবেন না। মেহেদি লাগানোর আগে দুই তিন দিন অপেক্ষা করুন। নয়ত আপনার ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।

মেহেদি লাগানোর আগে হাত ভালোভাবে ধুয়ে শুইয়ে নিন। টিউব মেহেদি লাগানোর সবছে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হচ্ছে এটাকে শক্ত করে ধরা। তা না হলে ডিজাইন নস্ট হয়ে যেতে পারে। লাগানোর সময় হাতের সামনে অতিরিক্ত কাপড় বা টিস্যু রাখুন যাতে অতিরিক্ত মেহেদিতা মুছে ফেলা যায়।

মেহেদি লাগানোর পরে যখন মেহেদি একটু একটু করে শুকাতে শুরু করবে তখন একটি পাত্রে সামান্য লেবুর রস আর চিনি মিশিয়ে তুলার বল দিয়ে রস টা নিয়ে হাতে মিশ্রণটি লাগান।  এতে রঙ গাড় হয়।

সাধারণত রাতে ঘুমাতে যাওয়ার ২/৩ ঘণ্টা আগে মেহেদি লাগানো ভালো। সারা রাত হাতে মেহেদি রেখে দিলে এর রঙ ভালো হয়। মেহেদি শুকিয়ে গেলেও হাত ধুবেন না। অন্তত ৮ ঘণ্টা পানি থেকে হাত দূরে রাখুন। যত দেরীতে পানি লাগাবেন হাতে তত বেশি রঙ গাঢ় হবে।

চুলার উপর একটি শুকনো তাওয়ায় কয়েকটি লবঙ্গ রেখে দিন। মেহেদি তোলার পর হাত ২ টি গরম তাওয়া থেকে একটু দূরে রেখে হালকা ভাপ লাগান হাতে। এতে রঙ গাঢ় হবে।

চা পাতা জ্বাল দিয়ে সেটার মধ্যে সারা রাত মেহেদি পাতা বা মেহেদি গুঁড়ো রেখে দিন। পরের দিন বেটে হাতে লাগালে গাঢ় রঙ হবে। এছাড়া ১ চামুচ কফির সাথে মেহেদি বেটে হাতে লাগালে ও রঙ গাড় হয়।

মেহেদির রঙ তুলতে যে কোন ব্লিচ ক্রিম অথবা টুথপেস্ট হাতে লাগিয়ে শুকিয়ে নিন। এরপর হাত ঘষলেই মেহেদির রঙ অনেকটাই হালকা হয়ে যাবে।