Category Archives: ক্যাম্পাস

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ড্রামা এন্ড থিয়েটার ফোরাম মঞ্চস্থ করল রবীন্দ্রানাথ ঠাকুরের “মহামায়া”

Mohamaya 1২০১৫ সালের ৬ই ডিসেম্বর কবিগুরু রবীন্দ্রানাথ ঠাকুরের ছোটগল্প অবলম্বনে নাটক “ মহামায়া” মঞ্চস্থ করল ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ড্রামা এন্ড থিয়েটার ফোরাম। এই মনোমুগ্ধকর পরিবেশনায় ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির বিভিন্ন বিভাগের উৎসাহী এবং প্রতিভাবান শিল্পীরা তাদের প্রতিভাকে সবার সামনে প্রকাশ করে প্রচুর সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এই পরিবেশনার মূল বিষয়বস্তু ছিল নারীসমাজের অবনতি, সমাজের কিছু গোঁড়ামি প্রথা এবং কুসংস্কারকে তুলে ধরা যেগুলোকে ঢাল হিসেবে ব্যাবহার করে সমাজের এক শ্রেণীর মানুষ প্রতিনিয়ত নারীহত্যা চালিয়ে যাচ্ছিল। বস্তুত এই পরিবেশনার মূল উদ্দেশ্য ছিল এই ধরনের অপরাধ ও সামাজিক কুসংস্কারের বিরুদ্ধে তরুন সমাজের মাঝে সচেতনতা জাগিয়ে তোলা।

Continue reading

ইস্টওয়েস্টের শিক্ষার্থীদের রাস্তা অবরোধ , আহত ৩০

11986395_615101175296702_7895332154579946509_nবেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বেতনের সঙ্গে সাড়ে সাত শতাংশ ভ্যাট আরোপের সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে রাজধানীর ইস্টওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করছেন। তাঁরা রামপুরার আফতাবনগর ঢোকার মুখ অবরোধ করে রেখেছেন। ফলে ওই এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।
ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের ছোড়া গুলি ও লাঠিপেটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অতিরিক্ত রেজিস্ট্রারসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন বলে শিক্ষার্থীরা দাবি করেছেন। তবে পুলিশ গুলি ছোড়ার বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি। শিক্ষার্থীরা পুলিশ ফাঁড়ি ভাঙচুর করেছে ও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়েছে।

Continue reading

ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ধুম

Image 3শেষ হয়েছে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। কিন্তু শেষ হয়নি ক্রিকেট প্রেম। আর তাই চারদিকে শুরু ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ধুম। পাড়া-মহল্লায় অলিতে গলিতে চলছে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট বা প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ। বিশেষ করে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে দেখা যাচ্ছে এই আয়োজন। এরই রেশ ধরে শুরু হয়েছে মোহাম্মদপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৯৬৯ থেকে ২০১৫ সালের ছাত্রদের অংশগ্রহণে জমজমাট ক্রিকেট টুর্নামেন্ট।

শুক্রকার সকালে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে এর উদ্বোধন হয়। উদ্বোধনী ম্যাচে প্রতিদ্বন্দিতা করে ২০০৩ ও ২০০৫ সালের ব্যাচ। টান টান উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে ১২ ওভারে ৭ ইউকেট হারিয়ে ১২৪ রান করে ২০০৩ ব্যাচ। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৮ ইউকেট হারিয়ে ১২২ রান করতে সক্ষম হয় ২০০৫ ব্যাচ। শ্বাসরুদ্ধকর এই ম্যাচটিতে মাত্র ২ রানে ম্যাচ জিতে যায় ২০০৩ এর ব্যাচ। প্রীতি এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ হয়েছেন ২০০৩ এর ব্যাচের ইবরাহিম সরদার সুমন।

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ক্লাব কার্নিভাল এ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ক্লাব কার্নিভালে এ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে গত ১৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ”ক্লাব কার্নিভাল” ২০১৪ । অনুষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য ছিল ছাত্র ছাত্রীদের সহ পাঠ্যক্রম বিষয়ক কার্যক্রমে অংশগ্রহনে উদ্বুদ্ধ করা যাতে তারা তাদের বৈচিত্রময় উদ্ভাবনী শক্তিকে বিকশিত করবার প্রয়াসে তাদের মাঝে সৃজনশীল চিন্তার বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাব গুলোর পক্ষ থেকে সারাদিনব্যাপি বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দিনটি উদ্যাপিত হয়। সকাল ১০.০০ টায় অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন সমাজ কল্যান প্রতিমন্ত্রি এ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের সেমিনার হলে আয়োজিত ”উচ্চশিক্ষায় সহশিক্ষার গুরত্ব” বিষয়ক সেমিনারে তিনি লেখাপড়ার পাশাপাশি অন্যান্য সহ শিক্ষাবিষয়ক কার্যক্রমে ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান। সেমিনারে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য মোহাম্মদ আলি আজম, ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির উপ উপচার্য প্রফেসর আবদুল হান্নান চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির উপার্চায প্রফেসর আব্দুর রব। বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬ টি ক্লাব ফোরাম এই কার্নিভালে অংশগ্রহন করে। দুপুর দুইটায় ইস্টার্ন ইউনিভাসিটি ড্রামা এন্ড থিয়েটার ফোরাম মঞ্চায়িত করে সেলিম আল দিনের সংবাদ কার্টুন। বিকাল তিনটায় ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি কালচারাল ক্লাব পরিবেশন করে মনোঙ্গ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ক্লাব কার্নিভাল এ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে ক্লাব কার্নিভাল

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে ক্লাব কার্নিভাল

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে ক্লাব কার্নিভালইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি আগামি ১৯ অক্টোবর আয়োজন করতে যাচ্ছে ক্লাব কার্নিভাল ২০১৪ । অনুষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে ছাত্র ছাত্রীদের সহ পাঠ্যক্রম বিষয়ক কার্যক্রমে অংশগ্রহনে উদ্বুদ্ধ করা যাতে তারা তাদের বৈচিত্রময় উদ্ভাবনী শক্তিকে বিকশিত করবার প্রয়াসে তাদের মাঝে সৃজনশীল চিন্তার বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে পারে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাবগুলোর পক্ষ থেকে সারাদিনব্যাপি বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দিনটি উদ্যাপিত হবে। সকাল ১০.০০ টায় অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন সমাজ কল্যান প্রতিমন্ত্রি এ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬ টি ক্লাব এই কার্নিভালে অংশগ্রহন করবে। বিকাল দুইটায়  ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ড্রামা এন্ড থিয়েটার ফোরাম সেলিম আল দ্বীন স্যার এর “সংবাদ কার্টুন” মঞ্চায়িত করবে, এছাড়া কালচারাল ক্লাব বিকাল তিনটায় পরিবেশন করবে মনোঙ্গ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এছাড়াও থাকছে স্বল্প দৈর্ঘ চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, প্রদর্শনী বিতর্ক, স্থির চিত্র প্রদর্শনী এবং স্চ্ছো রক্তদান কর্মসূচি।

স্থানঃ ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ক্যাম্পাস ।

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে ক্লাব কার্নিভাল

ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় এ গ্রিন জার্নালিজম নিয়ে কর্মশালা

ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় এ গ্রিন জার্নালিজম কর্মশালা

সবুজ পৃথিবী গড়ে তোলা, সবুজ আন্দোলন প্রসার করা, পরিবেশ সংক্রান্ত কাজ করা, পরিবেশ পরিবর্তন বিষয়ে গণসচেতনতা সৃষ্টিকল্পে সিটিজেন জার্নালিজমের অবদান কি এখন, আর ভবিষ্যতের করনীয় কি! বাংলাদেশের সাংবাদিকতা জগতে অপেক্ষাকৃত নতুন শব্দ ‘গ্রীন জার্নালিজম’ নামে একটি সেমিনারে সেসব বিষয়ে আলোচনায়, দেশগঠন আর উন্নয়নের স্থায়িত্বশীলতার জন্য পরিবেশ সাংবাদিকতায় নাগরিকদের আরো বেশি সংশ্লিষ্ট হ্ওয়ার আবেদন জানানো হয়েছে।

 বাংলাদেশ প্রতিদিনের নিউজ এডিটর, জনাব লুৎফর রহমান হিমেল এই আলোচনায় অংশ নিয়ে তার আক্ষেপের পূনরাবৃত্তি করে বলেন, সাংবাদিকতার রং হলুদ থেকে আরও ভয়াবহ রং কালোর দিকে পর্যবসিত হয়েছে। সংবাদে জনস্বার্থ, দেশস্বার্থ, পরিবেশ স্বার্থ বলে কিছু থাকছে না। রগরগে ‘নেতিবাচক’ সংবাদে ভরে উঠছে পত্রিকার কলামের পর কলাম।

ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় এ গ্রিন জার্নালিজম নিয়ে কর্মশালাহলুদ আর কালো সাংবাদিকতার চ্যালেঞ্জ হিসেবে তাই আরও একটি রঙের সাংবাদিকতার প্রয়োজন পড়েছে এখন। রং কে রং দিয়েই মোকাবিলা করতে হবে। এই রং হবে সবুজ। যাকে পশ্চিমা বিশ্ব ডাকতে শুরু করেছে গ্রিন জার্নালিজম নামে। পরিবেশ ও প্রতিবেশকে তারা অতীব গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। অথচ সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী বা ভালোনারেবল দেশ হিসেবে বাংলাদেশের মিডিয়ার এ দায়িত্ব সর্বাগ্রে নেওয়া দরকার ছিল। কারণ, এ দেশ সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। দেশ ভালো নেই, ভালো নেই পৃথিবীও। ভালো নেই মানুষ। আমরা আসন্ন ভয়াবহতা টের পাচ্ছি এখনই। বিশ্বের উষ্ণতা যে হারে বাড়ছে তাতে আগামী দিনে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বাংলাদেশের উপকূলে প্রতি বছর মিলিমিটার করে সমুদ্রের পানি বাড়ছে। বছরে সমুদ্রজলের উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়েছে দুই সেন্টিমিটার। সমুদ্রের পানি যেভাবে বাড়ছে তাতে প্রতি সাতজনে একজন উদ্বাস্তুতে পরিণত হবে। এরা হচ্ছে জলবায়ু উদ্বাস্তু। আগামীতে বাংলাদেশের ১৭ ভাগ এলাকা সমুদ্রে বিলীন হয়ে যাবে। কিন্তু এসব নিয়ে মিডিয়ায় লেখা কই? ‘

এই কর্মশালার সহ আয়োজক, সবুজপাতার উদ্যোক্তা সাহেদ আলম বলেন, কারো জন্য নয়, নিজের প্রয়োজনেই পরিবেশ নিয়ে নাগরিক সাংবাদিকতার সময় এসেছে। বলেন, এখন কার সময় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম গুলোতে যত সংবাদ এর উৎস তৈরী হয়,তা আগের যে কোন সময়ের তুলনায় অনেক বেশি। এই নাগরিক সাংবাদিকতার ঝোক যদি পরিবেশ এর স্বার্থ সুরক্ষার দিকে ধাবিত করা যায়,তাহলে উন্নয়ন টেকসই হবে। কেননা,তখন উন্নয়নের নামে লুটপাট হবে না, উন্নয়ন যন্তনায় রুপান্তরিত হবে না। তিনি উদাহারণ টেনে বলেন, পরিবেশ বিষয়ে নাগরিক সাংবাদিকতার শক্তি কতাটা বেশি তা বোঝার জন্য সাম্প্রতিক একটি ঘটনাই যথেষ্ট। সম্প্রতি চীন মৈত্রী সম্মেলন কেন্দ্রে একটি বহুজাতিক তামাক কোম্পানী তারুন্য কর্নসার্ট এর নামে তরুনদের ধুমপানে আকৃষ্ট করার কৌশল নিয়েছিল,কিন্তু নাগরিকরাই প্রথমে সামাজিক যোগাযোগে এটির হইচই শুরু করলে, কর্তৃপক্ষ সে অনুষ্টান বাতিল করে পলায়ন করতে বাধ্য হয়েছে।

সাহেদ আলম বলেন, গনমাধ্যমের পাতা বা সময়ের পরিধিতে পরিবেশের জন্য আলাদা জায়গা তৈরী করতে হবে। ঠিক যেমন এখন সে সুযোগ পায় ‘ব্যবসা পাতা’ ‘সাহিত্য পাতা’ কিংবা ‘ফ্যাশন পাতা’। অথবা ‘বানিজ্য সংবাদ, কৃষি সংবাদ’ ইত্যাদি, ইত্যাদি। সে দিন দুরে নয়, পরিবেশ সংক্রান্ত সংবাদ  গনমাধ্যমে নিউজ টিটমেন্ট পা্ওয়ার ক্ষেত্রে পুষ্টিহীনতায় ভুগবে,অথবা তলানির দিকে পড়ে থাকবে। কিন্তু জোর করে তো আর সংবাদে জায়গার আবদার করা যাবেনা! পরিবেশ বিষয়ে সাংবাদিকতার মোড়ক বদলাতে হবে, সাধারণ পাঠক আগ্রহী হয় তেমন বিষয় নিতে হবে, আর পুজির প্রসারের সাথে পরিবেশের সম্পর্ক স্থাপনও জরুরী।তাহলেই সেই অধিকার প্রতিষ্টা সম্ভব হবে তাড়াতাড়ি।

ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় এ গ্রিন জার্নালিজম নিয়ে কর্মশালাসিটিজেন জার্নালিজমের রাস্তা আরো প্রসার করা এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য পরিবেশ বান্ধব সবুজ সাংবাদিকতার প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের এ কর্মশালায় আরো বক্তব্য রাখেন সমকালের সহকারী সম্পাদক শেখ রোকন ।

তিনি বলেন, পৃথিবীতে বেশ কিছু নজীর আছে যে মানুষ দীর্ঘদিন নিজের সাথে কথা বলেছে, নিজের কাছেই প্রশ্ন করেছে প্রকৃতির খাম খেয়ালী আচরন নিয়ে। তা থেকে পরবর্তীতে গবেষনার ডাক এসেছে, ফলে আজকে আমরা বৈশ্বিক পরিমন্ডলে পরিবেশ নিয়ে ভাবছি,সেমিনার করছি। এখস প্রযুক্তি সেরা সময়ে সেসব ভাবনা জোরদার করেই পরিবেশ  সুরক্ষায় করনীয় বের করতে হবে। এসয় তিনি পরিবেশ নিয়ে তরুনদের ভাবনা গুলি লিখে পত্রিকা বা অন্য মাধ্যমে পাঠানোর অনুরোধ করেন। ছাপাযোগ্য হলে সেগুলি প্রকাশের ব্যবস্থা করবেন বলে জানান। তিনি বলেন, পরিবেশ এমন বড় একটি বিষয় এটি গুটিকয়েক মানুষের ভাবনার জায়গা নয় শুধু। সামগ্রিকভাবে নাগরিকদের সচেতনতা না বাড়লে  জীব-বৈচিত্রের সমবস্থানের অবক্ষয় অব্যহত  থাকবে বলে আশঙ্কা করেন।

অন্যন্যদের মধ্যে ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থায়নে পরিচালিত ‘জার্নালিজম ট্রেনিং ইনিশিয়েটিভ’- যাত্রীর নির্বাহী জামিল আহমেদ ও বক্তব্য রাখেন এবং এই গ্রিন জার্নালিজমের ধারণা এবং চর্চা প্রসারে ভবিষ্যতে আরো কিভাবে ভুমিকা রাখা যায় তা নিয়ে কাজ করার আশ্বাস দেন জামিল আহমেদ।

বৃহস্পতিবার ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির উদ্যোগে সবুজপাতা ও বিডি এনভায়রমেন্টের সহযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয় হলরুমে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সহ সভাপতি ক্যাম্পাস মিররের সম্পাদক আ ফ ম মশিউর রহমান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর ড.আব্দুল হান্নান চৌধুরী।

সেমিনারে উপস্থিত গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বরা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বিশেষ করে সংবাদপত্র, ম্যাগাজিন, টেলিভিশন ও রেডিওতে টেকসই উন্নয়ন সম্পর্কিত সংবাদ উপস্থাপন করার বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেন।

বায়েজিদ আহমেদ

সংবাদ কর্মী